Text size A A A
Color C C C C
পাতা

সাধারণ তথ্য

 

কক্সবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি

এক নজরেতথ্যাবলী

জুন-২০১৫ ইং পর্যন্ত

 

০১

অন্তভূক্ত উপজেলা

০৯টি। (কক্সবাজার, রামু, চকরিয়া,পেকুয়া, উখিয়া, টেকনাফ,মহেশখালী, এবং বান্দরবান জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি ও লামা উপজেলার আংশিক।

০২

আয়তন

২৯০৭.৯৫ বর্গ কিঃ মিঃ।

০৩

নিবন্ধন করনের তারিখ

১৯-১২-১৯৯২ ইং।

০৪

বিদ্যুতায়নের তারিখ

০৫/১২-১৯৯৩ ইং।

০৫

অন্তভূক্ত এলাকার জনসংখ্যা

১৯,৫৭,৩২১ জন।

০৬

অন্তভূক্ত এলাকার মোট পরিবারের সংখ্যা

১,৫২,১১০টি।

০৭

অন্তভূক্ত ইউনিয়নের সংখ্যা

৬৮টি (সেন্টমার্টিন ব্যতীত)।

০৮

বিদ্যুতায়িত ইউনিযনের সংখ্যা  

৬২ টি। 

০৯

অন্তভূক্ত গ্রামের সংথ্যা

৯১৭ টি। 

১০

বিদ্যুতায়িত গ্রামের সংখ্যা  

৭৯৬ টি। 

১১

এলাকার সংখ্যা  

১০ টি। 

১২

স্বাক্ষরিত সদস্য সংখ্যা    

১,২২,৭৭০ জন। 

১৩

এলাকা পরিচালক  

১০ জন, মহিলাপরিচালক- ০৩ জন। 

১৪

গ্রাম উপদেষ্টার সংখ্যা

৪৫৮ জন।

১৫

গ্রাম বিদ্যুৎবিদের সংখ্যা  

১৪৪ জন। 

১৬

৩৩/১১ কেভি উপকেন্দ্রের সংখ্যা  

০৯ টি, (কক্সবাজার- ১০ এমভিএ, ঈদগাহ-১০ এমভিএ, চকরিয়া-১০এমভিএ, উখিয়া- ১০ এমভিএ,উখিয়া-(২) ১০ এমভিএ, টেকনাফ- ১০ এমভিএ, মহেশখালী-১০এমভিএ, হ্নীলা-০৫ এমভিএ, পেকুয়া ০৫ এমভিএ)।

১৭

কর্মকর্তা/কর্মচারীর সংখ্যা  

৩৭৯ জন। 

১৮

জোনাল অফিসের সংখ্যা

০৪ টি ( উখিয়া, টেকনাফ, মহেশখালী ও চকরিয়া)।

১৯

সাব-জোনাল অফিসের সংখ্যা

০১টি (ঈদগাও)। 

২০

অভিযোগ কেন্দ্রের সংখ্যা

১১ টি ( হ্নীলা, মরিচ্যা, পালংখালী, কেরণতলী, মাতারবাড়ী, ডুলাহাজারা, ইলিশিয়া, পেকুয়া, চৌফলদন্ডি, খুরুশকুল এবং রামু)।

২১

মোট অনুমোদিত লাইন (কিঃ মিঃ) 

৩৪৭২

২২

মোট নির্মিত লাইন (কিঃ মিঃ)

৩৩২১.৪৫২

২৩

মোট বিদ্যুতায়িত লাইন (কিঃ মিঃ) 

৩০২৬.৩৫৫

২৪

সিষ্টেম লস

সাব-ষ্টেশন মিটার অনুযায়ী- ৫.২৪%, বাৎসরিক গড়- ১১.৬০%। বিলিং মিটারঅনুযায়ী- ১১.৩২%, বাৎসরিক গড়- ১৮.৪০%।

২৫

বকেয়া মাস- 

২.১০

২৬

বিল আদায়ের হার-

১১৫.২৮%।

 

টেলিফোন নাম্বার সমূহ

 

ক্রমক নং

বহনকারী/অফিসের নাম

টেলিফোন/মোবাইল নাম্বার

০১

জেনারেল ম্যানেজার, সদর দপ্তর

০১৭৬৯৪০০০২৩

০২

ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার, (কারিগরী)

০১৭৬৯৪০২১৩০

০৩

ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার, টেকনাফ জোনাল অফিস

০১৭৬৯৪০০১২৪

০৪

ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার, চকরিয়া জোনাল অফিস

০১৭৬৯৪০০১২৬

০৫

ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার, উখিয়া জোনাল অফিস

০১৭৬৯৪০০১২৫

০৬

ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার, মহেশখালী জোনাল অফিস

০১৭৬৯৪০০১২৭

০৭

সদর দপ্তর অভিযোগ কেন্দ্র

০১৭৬৯৪০১০৪৭

০৮

ঈদগাঁও সাব জোনালঅফিস

০১৭৬৯৪০১০৫০

 

রামু এরিয়া অফিস 

০১৭৬৯৪০১০৪৯

০৯

খুরুশকুল অভিযোগ কেন্দ্র  

০১৭৬৯৪০১০৪৮

১০

চৌফলদন্ডি অভিযোগ কেন্দ্র

০১৭৬৯৪০১০৫১

১১

চকরিয়া অভিযোগ কেন্দ্র  

০১৭৬৯৪০১০৫৭

১২

ডুলাহাজরা অভিযোগ কেন্দ্র

০১৭৬৯৪০১০৬০

১৩

পেকুয়া অভিযোগ কেন্দ্র

০১৭৬৯৪০১০৫৮

১৪

ইলিশিয়া অভিযোগ কেন্দ্র

০১৭৬৯৪০১০৫৯

১৫

মহেশখালী অভিযোগ কেন্দ্র

০১৭৬৯৪০১০৬১

১৬

কেরনতলী অভিযোগ কেন্দ্র   

০১৭৬৯৪০১০৬৩

১৭

মাতারবাড়ি অভিযোগ কেন্দ্র  

০১৭৬৯৪০১০৬২

১৮

উখিয়া অভিযোগ কেন্দ্র  

০১৭৬৯৪০১০৫৪

১৯

মরিচ্যা অভিযোগ কেন্দ্র

০১৭৬৯৪০১০৫৫

২০

পালংখালী অভিযোগ কেন্দ্র  

০১৭৬৯৪০১০৫৬

২১

টেকনাফ অভিযোগ কেন্দ্র

০১৭৬৯৪০১০৫২

২২

হ্নীলা অভিযোগ কেন্দ্র

০১৭৬৯৪০১০৫৩

 

বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে করণীয় ‍ঃ

* দিনের আলোতে প্রয়োজনীয় কাজ শেষ করুন।

* বিদ্যুৎ স্থাপনা আমাদের জাতীয় সম্পদ; দেশের নাগরিক হিসেবে এগুলো রক্ষা করুন।

* বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি চুরি রোধ করুন; বড় ধরনের বিদ্যুৎ বিপর্যয় থেকে দেশকে বাঁচান।

* লোডশেডিং কমাতে রাত ৮টার মধ্যে শপিং মল/দোকান পাটসহ বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ করুন।

* বিদ্যুৎ অপচয় রোধে বাতি/ফ্যান ব্যবহারে সচেতন হোন।

* অবৈধ বিদ্যুৎ ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হোন।

* উন্নতমানের বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করুন।

* শিল্প ও সেচ পাম্পে ব্যবহৃত বৈদ্যুতিক মটর সমূহের পাওয়ার ফ্যাক্তরের মান ০.৯৫ এর উপরে রাখার জন্য প্রয়োজনীয় সাইজের ক্যাপাসিটর ব্যবহার করুন।

* ম্যাগনেটিক ব্যালাষ্টের পরিবর্তে ইলেক্ট্রনিক ব্যালেষ্ট অনেক বেশি সাশ্রয়ী বাধায় ইলেকট্রিক ব্যালাষ্ট ব্যবহার করুন।

* এসির তাপমাত্রা ২৫ ডিগ্রি সে. বা তার উপরে রাখুন এবং পিক আওয়ারে এসি, ইলেকট্রিক ইস্ত্রি, পানির পাম্প চালানো থেকে বিরত থাকুন।

* দোকান, শপিং মল, বাসা ‍বাড়ীতে অপ্রয়োজনীয় আলোকসজ্জা পরিহার করুন।

* কক্ষ/কর্মস্থল ত্যাগের পূর্বে বৈদ্যুতিক বাতি, পাখা ও অন্যান্য বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি বন্ধ রাখুন।

 

রাতের বেলা সেচ পাম্প চালানো উত্তম

* রাতে মাটি ঠান্ডা থাকে, সূর্যতাপে পানির অপচয় হয় না, ফলে পানি সেচে খরচ কম হয়।

* রাম ১১:০০ টার পর সেচ পাম্ব চালালে সঠিক ভোল্টেজ ও অব্যাহত বিদ্যুৎ সরবরাহ পাওয়া সম্ভব। এভাবে অধিক ফসল ফলিয়ে নিজে লাভবান হোন ও দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে সহায়তা করুন।

* সন্ধ্যা ৫টা হতে রাত ১১টা পর্যন্ত সেচ পাম্প বন্ধ রাখুন এবং ১১টার পর থেকে রাত ও দিনে অন্য সময় পাম্প চালান।

* কৃষি নির্ভর বাংলাদেশে সেচ পাম্পগুলো সর্বোত্তম ব্যবহার করে অধিক ফসল ফলান। বিদ্যুৎ দেশের প্রাণ প্রবাহ, এর সূষ্ঠ ব্যবহার নিশ্চিত করুন।